তুরস্কে স্কুলের বই থেকে বাদ পড়ছে ডারউইনের তত্ত্ব




জীববিজ্ঞানচার্লস ডারউইন

তুরস্কে সরকার সেদেশের জাতীয় পাঠ্যক্রম থেকে বিবর্তনবাদের তত্ত্ব বাদ দেয়ায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করা হচ্ছে সেদেশের অনলাইন ফোরামগুলোতে।

তুরস্কের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিকুলাম বোর্ডের প্রধান আলপাসলান দারমাস ঘোষণা করেন, নবম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের জীববিজ্ঞানের পাঠ্যবই থেকে চার্লস ডারউইনের বিবর্তনবাদ সংক্রান্ত একটি অনুচ্ছেদ আগামী বছর থেকে বাদ দেয়া হবে।

চার্লস ডারউইনের বিবর্তনবাদের মূল কথা হলো, সকল প্রজাতির প্রাণীরই কিছু অভিন্ন পূর্বপুরুষ থেকে ক্রমাগত পরিবর্তনের মাধ্যমে উদ্ভব ঘটেছে। কিন্তু ধর্মীয় পরিমন্ডলে এই তত্ত্বকে স্বীকার করা হয় না। বহু ধর্মেই সৃষ্টিতত্বে বলা হয়, ঈশ্বর মানুষ সৃষ্টি করেছেন।

মি. দারমাস বলেন, নবম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের এসব বিতর্কিত বিষয় বোঝার বয়স হয় নি, এবং উচ্চমাধ্যমিক স্তরের আগে এগুলো পড়ানো হবে না।

কিন্তু এর তীব্র সমালোচনা করা হচ্ছে তুরস্কের অনলাইন ফোরামগুলোতে। এসব ফোরামের আলোচকরা বলছেন, ‘এটা ধর্মান্ধতা। এ ধরণের পরিবর্তন হলে বিজ্ঞান বা জীববিদ্যা পড়ানো হবে কিভাবে?

জীববিজ্ঞানছবির বিবর্তনবাদীদের চোখে মানুষের উদ্ভব

একজন মন্তব্য করেছেন, ‘এটা অবিশ্বাস্য ব্যাপার যে আধুনিক বিজ্ঞানের সবচেয়ে মৌলিক তত্বকে ‘বিতর্কিত’ বলা হচ্ছে।”

আরেকজন বলেন, “এই তত্ব এমনিতেই তুরস্কে ভালোভাবে পড়ানো হচ্ছে না। কারণ আমাদেরকে শিক্ষক প্রশ্ন করেছিলেন – তোমাদের কে কে বিবর্তনবাদে বিশ্বাস করো? আমি হাত তুললাম। শিক্ষক বললেন, ‘তুমি কি তাহলে একটা বানর?”

কিন্তু সরকারের উদ্যোগের সমর্থকেরও অভাব নেই। ফেসবুকে একজন মন্তব্য করেছেন, “আমি সরকারকে এ জন্য ধন্যবাদ দিচ্ছি যে তারা এই পচা এবং অর্থহীন মতবাদটিকে পাঠ্যক্রম থেকে বাদ দিচ্ছেন।”

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তায়েপ এরদোয়ান ইতিমধ্যেই জাতীয় পাঠ্যক্রমে পরিবর্তনের প্রস্তাব অনুমোদন করেছেন। আগামি সপ্তাহে এটা প্রকাশ করা হচ্ছে।

তুরস্কছবির কপিরাইটGETTY IMAGES
Image captionতুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের বিরুদ্ধে অভিযোগ যে তিনি দেশটির ইসলামিকরণ করছেন

তুরস্কের ১ লক্ষ শিক্ষকের একটি ইউনিয়নের প্রধান ফেরাই এতেকিন এদোয়ান, তিনি বলছেন, সউদি আরবের পর তুরস্ক হবে মাত্র দ্বিতীয় দেশ যারা বিবর্তনবাদ পড়ানো বন্ধ করে দিচ্ছে।”

তিনি বলেন, এমনকি ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানেও বিবর্তন ও ডারউইনের ওপর মোট ৭১ ঘন্টার পাঠদান করা হয়।

জানা যাচ্ছে তুরস্কের একটি রক্ষণশীল এবং সরকারের ঘনিষ্ঠ শিক্ষক ইউনিয়ন পএসব পরিবর্তনের প্রস্তার করে।

ইসলাম ধর্মবিশ্বাস অনুযায়ী আল্লাহ হচ্ছেন মানুষ ও সকল প্রাণীর স্রষ্টা, এবং প্রথম মানব-মানবী হচ্ছেন আদম এবং তার পাঁজরের হাড় থেকে তৈরি হাওয়া।

ধর্মনিরপেক্ষতাবাদী বিরোধীদল বলছে, মি. এরদোয়ান এবং তার একে পার্টি তুরস্ককে অধিকতর ইসলামিক ও রক্ষণশীল দেশে পরিণত করতে চাইছেন।

প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান নিজেই একাধিকবার বলেছেন, তার লক্ষ্য হচ্ছে একটি ধার্মিক প্রজন্ম গড়ে তোলা ।

 

10,475 total views, 18 views today

Comments

comments




Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*